গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য ৩০ লাখ গণস্বাক্ষরযুক্ত আহ্বান জাতিসংঘে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নির্মূল কমিটির

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় সংগঠিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য আগামী এক বছরের মধ্যে ৩০ লাখ গণস্বাক্ষরযুক্ত আহ্বান জাতিসংঘে পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি।

’৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং সন্ত্রাসী মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক রাজনীতি নিষিদ্ধকরণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় রাষ্ট্র ও সমাজ প্রতিষ্ঠার সর্ববৃহৎ নাগরিক সংগঠন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি ৩০ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে আজ (১৯ জানুয়ারি) কেন্দ্র ও বিভিন্ন শাখার উদ্যোগে বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। সকালে কেন্দ্র ও মহানগরের নেতৃবৃন্দ মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক শহীদজননী জাহানারা ইমামের সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ ও শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নির্মূল কমিটির ৩০তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানসূচি আরম্ভ হয়।

বিকেলে সংগঠনের সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবিরের সভাপতিত্বে একটি আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়, যেখান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি। অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন নির্মূল কমিটির সহ-সভাপতি শহীদজায়া শ্যামলী নাসরীন চৌধুরী, নির্মূল কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য কথাশিল্পী অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, নির্মূল কমিটির চিকিৎসা সহায়ক কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব, নির্মূল কমিটির আইটি সেলের সভাপতি শহীদসন্তান আসিফ মুনীর তন্ময়, নির্মূল কমিটির সাংস্কৃতিক স্কোয়াডের সাধারণ সম্পাদক সঙ্গীতশিল্পী জান্নাতুল ফেরদৌসী লাকী, সর্ব ইউরোপীয় নির্মূল কমিটির সভাপতি সমাজকর্মী তরুণ কান্তি চৌধুরী, সর্ব ইউরোপীয় নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী আনসার আহমেদ উল্যাহ, ইন্দো-বাংলাদেশ ফোরাম ফর সেক্যুলার হিউম্যানিজমের সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী বিদ্যুৎ দেবনাথ, নির্মূল কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শওকত বাঙালী, নির্মূল কমিটির আইন সহায়ক কমিটির দপ্তর সম্পাদক এডভোকেট আসাদুজ্জামান বাবু ও নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী কাজী মুকুল প্রমূখ।

সভাপতির প্রারম্ভিক ভাষণে শাহরিয়ার কবির ৩০ বছরের আন্দোলনের দীর্ঘ পদযাত্রায় বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত ও সাফল্যের সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরে বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও গণহত্যার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে নির্মূল কমিটি আগামী এক বছরে বাংলাদেশের মাটিতে সংঘটিত ১৯৭১-এর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য বাংলাদেশ এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের ৩০ লক্ষ নাগরিকের স্বাক্ষর সংগ্রহ করে জাতিসংঘ সহ সদস্য রাষ্ট্রসমূহের সরকারের নিকট পাঠাবে। তিনি বলেন, ২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন এবং বাংলাদেশের গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য ২০১৭ সালের মার্চে জাতীয় সংসদে সর্বসম্মত প্রস্তাব গৃহীত হলেও সরকারিভাবে এ পর্যন্ত ’৭১-এর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের কোনও উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। এক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে যৌথভাবে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।’

শাহরিয়ার কবির আরও বলেন, ‘পাকিস্তান ও পাকিস্তানপন্থীরা প্রথম থেকেই ’৭১-এর গণহত্যার দায় শুধু অস্বীকার করছে না, বরং এই মুক্তিযুদ্ধকালে তথাকথিত পাকিস্তানিদের হত্যার জন্য বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা ও ভারতীয় মিত্রবাহিনীকে দায়ী করছে। নির্মূল কমিটি দীর্ঘকাল পাকিস্তান সহ বিভিন্ন দেশে ’৭১-এর নৃশংসতম গণহত্যার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করে গণহত্যাকারীদের বিচারের পক্ষে দেশে ও বিদেশে জনমত সৃষ্টির কার্যক্রম অব্যাহত রাখলেও সরকার সক্রিয় উদ্যোগ গ্রহণ করলে অন্তিমে বাংলাদেশের গণহত্যা সম্পর্কে গণহত্যাকারী পাকিস্তানের মিথ্যা বয়ান সত্য বলে প্রতিষ্ঠিত হবে এবং এর জন্য আমাদের ৩০ লক্ষ শহীদ পরিবার সহ গোটা জাতির কাছে দায়ী থাকতে হবে।’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি বলেন, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি না হলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিটা গণমানুষের কাছে পৌঁছুতে পারত না। গণমানুষ যদি আন্দোলিত না হত তাহলে হয়ত আমাদের দল এবং সরকার অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে হয়তো এভাবে উদ্যোগ নিত না। শহীদ জননী জাহানারা ইমাম, কবি সুফিয়া কামাল, লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির সহ যারা নির্মূল কমিটির আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তাদের সবার প্রতি আমরা বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ। আজকে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির বিষয়ে নির্মূল কমিটি যে প্রস্তাব করেছে সে প্রস্তাবের সাথে আমি একমত পোষণ করি। দ্রুতই মন্ত্রীপরিষদে নির্মূল কমিটির এই দাবীর বিষয়ে আমি কথা বলব।

নির্মূল কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন বলেন, আর কোনো সংগঠন একটানা ত্রিশ বছর একটি আন্দোলন চালিয়ে যেতে পারেনি। একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আন্দোলন এমন একটি আন্দোলন যেখানে সব সময় দেশের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষেরা যুক্ত হয়েছেন। এ বিষয়ে নির্মূল কমিটি গর্ব করতেই পারে। আমাদের সফলতা অনেক, ব্যর্থতার দায় আমরা নেব নাÑ কারণ, যখন আমরা দেখি একজন শাহরিয়ার কবির এদেশে স্বাধীনতা পদক পান না, কিন্তু এমন অনেককে পদকটি দেওয়া হয়েছে তাদের আমরা চিনি না, ফলে নির্মূল কমিটির যদি কোনো ব্যর্থতা থেকে থাকে সেটি রাজনৈতিক দলগুলোর ক্ষমতার রাজনীতির বিষয়। নির্মূল কমিটি কখনও ক্ষমতা চায়নি, নির্মূল কমিটি ঘাতক-দালালদের বিচারের জন্য, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ গড়ার জন্য আন্দোলন চালিয়ে গিয়েছে, আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা কথাশিল্পী অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, নির্মূল কমিটির এই বিশাল কর্মকাণ্ডে অনেকেই জড়িত। তাদের সবার কাছে এই দেশ কৃতজ্ঞ থাকবে। আমি শাহরিয়ার কবিরের নাম আলাদাভাবে মনে করিয়ে দিতে চাই, মুক্তিযুদ্ধের জন্য একজন মানুষের এত তীব্র ভালবাসা থাকতে পারে, নিজের চোখে দেখেও বিশ্বাস হতে চায় না! জোট সরকারের আমলে প্রতিহিংসার কারণে শাহরিয়ার কবির জেল খেটেছেন। এই দেশকে ভালবাসার জন্য একজন মানুষকে কত কষ্ট করতে হয়, আমি নিজের চোখে দেখেছি। যুদ্ধাপরাধী শর্ষিনার পীরকে স্বাধীনতা পদক দিয়ে এই দেশকে অনেক বড় অপমান করা হয়েছে। অথচ মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য সম্মানিত করার বেলায় শাহরিয়ার কবিরকে কারও চোখে পড়ে না ভেবে আমি মাঝে মাঝে অবাক ও হতাশ হয়ে যাই!

কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী অপশক্তি ওয়াজ ও দাওয়াতি কার্যক্রমের নামে তৃণমূলে বিস্তার ঘটাচ্ছে। নির্মূল কমিটিকে এই অপশক্তি প্রতিরোধে তৃণমূলে সংগঠনের বিস্তার ঘটাতে হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মৌলবাদী অপশক্তির অপপ্রচার বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অপশক্তি ‘সাইবার জেহাদ’ মোকাবেলার জন্য নির্মূল কমিটি একটি সাইবার বাহিনী গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দেশে বিদেশে নির্মূল কমিটির বর্তমান সদস্য সংখ্যা প্রায় এক লক্ষ। আগামী সম্মেলনের আগে এই সংখ্যা ১০ লক্ষে উন্নীত করার পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সভায় অন্যান্য বক্তা নির্মূল কমিটির আন্দোলনের ৩০ বছরের বিভিন্ন অর্জন তুলে ধরে বলেন, একটি সংগঠন ও আন্দোলন কীভাবে একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে পারে তার অনন্য দৃষ্টান্ত হচ্ছে নির্মূল কমিটি। তারা বাংলাদেশের পাশাপাশি বহির্বিশ্বে নির্মূল কমিটির ধর্মনিরপেক্ষ মানবতার আন্দোলন আরো ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!