বিদেশে বসেই বাংলাদেশে কাজের সুযোগ পাবে মেধাবী প্রবাসিরা: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

আনসার আহমেদ উল্লাহ :

বাংলাদেশের বহুজাতীক কোম্পানীর শীর্ষ পদে বিদেশী নাগরিকদের নয়, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিদেশে বসবাসরত মেধাবী বাংলাদেশীদের সুযোগ সৃষ্টি করবে বাংলাদেশ। লন্ডনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে’র ভার্চুয়াল আলোচনায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এমন আশ্বাস দিয়েছেন। বর্তমানে বাংলাদেশের ফরেন রির্জাভের ৪০ বিলিয়ন ডলারের একটা বড় অংশ প্রবাসীদের রেমিটেন্স। কিন্তু ট্রান্সপারেন্সী ইন্টারন্যশনালের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, বাংলাদেশের কর্মরত বিদেশী নাগরিকরা প্রায় ২৬ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাঁচার করছে, অন্যদিকে বাংলাদেশে কাজ করা আড়াই লাখ বিদেশীদের কর ফাঁকি দেয়ার কারণে বাংলাদেশে ক্ষতি হচ্ছে বছরে ১২ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশকে বিদেশী সিইও নির্ভরতা কমিয়ে ব্রিটিশ বাংলাদেশী মেধাবী তরুণদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সুযোগ দিলে দেশের অর্থ বিদেশে পাচার হওয়ার ঝুঁকি কমবে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের পরিচালনা পরিষদের সদস্য তানভীর আহমেদ। টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, “যারা বাইরে বসবাস করেন, তাদের জন্য বাংলাদেশে কাজ করার সম্ভাবনা আছে। আপনার ও আপনার পরের প্রজন্মের জন্য, বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে কাজ করার সুযোগ তৈরীর জন্য অবকাঠামো তৈরী হচ্ছে বাংলাদেশে। আপনাকে বাংলাদেশে বসে থেকে কাজ করার দরকার নাই, যে ভাবে বাংলাদেশে বসে বাংলাদেশের ছেলে-মেয়েরা আউট সোসিং করে তেমনি করে বিদেশে অবস্থানকারী যে কোন বাংলাদেশী ডিজটাইজেশনের যুগে বিদেশে বসেই বাংলাদেশে কাজ করার সুযোগ পাবে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের পক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস এলাকা ও আবাসিক হলে ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধা চালুর ব্যাপারে মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে, মোস্তাফা জব্বার  বলেন, আগামী দুই বছরের মধ্যেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সহ উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও আবাসিক হলগুলোতে ফ্রি ওয়াইফাই সুবিধা দেওয়া সম্ভব হবে। মন্ত্রী জানান, “গত ১৯ মার্চ থেকে সচিবালয়ের অফিসে গিয়ে উঁকিও দেই নাই, কিন্তু একটা ফাইল পেন্ডিং নাই। প্রযুক্তির কল্যানেই এমনটা সম্ভব হয়েছে।” মন্ত্রী আরো বলেন, “বাংলাদেশে ১৭ কোটি মোবাইল কানেকশন থাকলেও ১৭ কোটি ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায় না। মাত্র ৩৫ শতাংশ ফোন ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। তাই আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশী স্মার্ট ফোন তৈরী হবে।”

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী ড. এনামুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ এখন আর বন্যা, খরা ও দূযোর্গের দেশ নেই। বাংলাদেশ দূযোর্গের সংকট কাটিয়ে মানবিক রাষ্ট্র হয়ে উঠেছে। প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়েছে, দীর্ঘদিন রোহিঙ্গাদের ভরন-পোষন করা বাংলাদেশের পক্ষে অসম্বব। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক কমিউনিটিকে আরো শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে দাবী জানান তিনি।

‘বার্থ অফ এ্যা নেশন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ শীর্ষক আলোচনায় অংশ নেন টেন মিনিট স্কুলের ইংলিশ ট্রেইনী ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শেভিনিং স্কলার মুনজারিন শহিদ। মুনজারিন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানাতে প্রথম বর্ষেই তাদের হাতে পর্যাপ্ত তথ্য তুলে দেওয়া হলে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে তাদের ধারনা পরিস্কার হবে, কেননা,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি গলিতেই রয়েছে ইতিহাস। সেই সাথে মেধা পাঁচার রোধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার সুযোগ সৃষ্টিতে গুরুত্ব দেন মুনজারিন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকে পরিচালনা পরিষদের সদস্য, থার্ড সেক্টর কনসালটেন্ট বিধানগোস্বামী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবেগের জায়গা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নামমাত্র খরচে পড়াশোনা করার জন্যই আজ আমাদের সামনে অনেক সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ইউকের মাধ্যেম আমরা আমাদের ঋণ কিছুটা হলেও শোধ করতে চাই।

মহান বিজয় দিবসের আলোচনায় একটি জাতির জন্মের পেছনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা স্মৃতি চারণ করেন সাংবাদিক ও গবেষক সৈয়দ বদরুল আহসান, মুক্তিযোদ্ধা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয় ক্লাব ইউকের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, ব্যারিস্টার চৌধুরী হাফিজুর রহমান, ডক্টর আশরাফ উদ্দীন, লিংকন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র লেকচারার ড. মাহফুজুর রহমান, সোনালী ব্যাংক ইউকের সাবেক প্রধান নির্বাহী আমীরুল ইসলাম, ব্যারিস্টার অজয় রায় রতন, এ্যাডভোকেট মুজাহিদুল ইসলাম, ব্যারিস্টার মেহেদী হাসান তালুকদার, শায়লা শিমলা, পলি জাহান, ফাতেমা লিলি, ঝুমুর দত্ত, রেহানা ফেরদৌস মনি ও ইমা সুলতানা চারু সহ অনেকে। ৪৯তম বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার ফলাফল ঘোষণা করেন প্রতিযোগিতার বিচারক এইচএসবিসি গ্লোবালের ওয়েব কনটেন্ড ম্যানেজার মাসুদ মিজান। অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের গান পরিবেশন করেন সঙ্গীত শিল্পী সারোয়ারী আলাম, সংবাদ পাঠিকা ও আবৃত্তি শিল্পী তানজীনা নূর ই সিদ্দিকী, সঙ্গীত শিল্পী রাশিদা খান বানু ও সিনিয়র নিউজ প্রেজেন্টার হিমিকা আযাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!