বিস্ময়,সহানুভূতি, উপহাস ও বিদ্রূপ : ট্রাম্পের করোনা পজিটিভিটিভের সংবাদে বিশ্ব প্রতিক্রিয়া

ব্রিটিশ বাংলা নিউজ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবার সংবাদে বিশ্ব জুড়ে বিস্ময়,সহানুভূতি, উপহাস ও বিদ্রূপ সহ চলছে বিভিন্ন রকমের প্রতিক্রিয়া।

জানাগেছে ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টা হোপ হিকসের সংক্রমণ ধরা পড়ার পর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন বলছে, সম্প্রতি ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের ট্রাম্পের সঙ্গী হয়েছিলেন সুদর্শনী হিকস। উড়োজাহাজে ট্রাম্পের সঙ্গী ছিলেন হিকস। মাস্ক ছাড়াই ট্রাম্পের সঙ্গে ঘুরে বেড়িয়েছিলেন হিকস। মার্কিন কোনো কোনো সংবাদ মাধ্যম তো নিউজও করেছে যে, হিকস থেকেই সংক্রমিত হয়েছেন ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর স্ত্রী ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনাভাইরাস টেস্টের ফলাফল পজিটিভ এসেছে। বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে এক টুইটবার্তায় ট্রাম্প নিজেই এ কথা জানান।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমার ও মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনা টেস্টের ফলাফল পজিটিভ এসেছে। আমরা শিগগিরই কোয়ারেন্টিনে থাকাসহ সেরে ওঠার প্রক্রিয়া শুরু করব। আমরা একসঙ্গে এই পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠব।’

এর আগে ঘনিষ্ঠ সহযোগী ও উপদেষ্টার করোনা পজিটিভ আসার পর ট্রাম্প ও তাঁর স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প করোনা পরীক্ষা করান। ট্রাম্প নিজেই টুইট করে সে কথা জানিয়েছিলেন।

ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, তার সহযোগী ও উপদেষ্টা হোপ হিকসের করোনা পজিটিভ হওয়ার পর তিনিসহ ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনা পরীক্ষা করা হয়।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, ট্রাম্প বৃহস্পতিবার এক টুইটে জানান, ‘হোপ হিকস কোনো বিরতি না নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করছিলেন। তিনি মাত্রই করোনায় শনাক্ত হয়েছেন। এটা ভয়ংকর!’

স্থানীয় সময় গত মঙ্গলবার ওহাইয়োতে টিভি বিতর্কে অংশ নেন ট্রাম্প। ট্রাম্পের সঙ্গে মেরিন ওয়ান হেলিকপ্টারে ভ্রমণ করেন তাঁর ঘনিষ্ঠ কর্মকর্তা হোপ হিকস। হোয়াইট হাউসের সাংবাদিকরা জানান, হিকস ট্রাম্পের সঙ্গে ছিলেন।

সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, ৩১ বছর বয়সী হোপ হিকস চলতি সপ্তাহের শুরুতে ওহাইও অঙ্গরাজ্যে একটি টিভি বিতর্কে যাওয়ার জন্য ট্রাম্পের সঙ্গে ভ্রমণ করেছিলেন। এর আগে গত মঙ্গলবার ওহাইওর ক্লিভল্যান্ডে প্রেসিডেন্সিয়াল জেট থেকে মাস্ক ছাড়াই হোপ হিকসকে নামতে দেখা যায়।

পরদিন বুধবার একটি নির্বাচনী সমাবেশে অংশ নিতে হেলিকপ্টারে করে মিনেসোটায় যান ট্রাম্প। সেখানেও তার সঙ্গে ছিলেন হিকস।

এসব সফরে ট্রাম্পকেও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। করোনার শুরু থেকেই তার মাস্ক না পরা নিয়ে বিতর্ক আছে। এ ছাড়া সরকারি ব্যস্ততার সময় উপদেষ্টা ও ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের সঙ্গে তাকে সামাজিক দূরত্বও মানতে দেখা যায় না।

ব্লুমবার্গ নিউজ জানিয়েছে, হিকসের করোনা উপসর্গ দেখা দিয়েছিল এবং এয়ারফোর্স ওয়ানে মিনেসোটা থেকে ফিরেই তিনি হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন।

হোপ হিকস করোনায় আক্রান্ত হওয়া হোয়াইট হাউসের সর্বশেষ কর্মকর্তা। এর আগে গত মে মাসে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের প্রেস সচিব কেটি মিলারের করোনা পজিটিভ আসে। তবে বর্তমানে তিনি সুস্থ রয়েছেন। একই মাসে মার্কিন নেভির একজন সদস্য, যিনি ট্রাম্পের ব্যক্তিগত সহচর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন, তিনিও করোনায় আক্রান্ত হন।

এ ছাড়া জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা রবার্ট ও’ব্রায়ান, গোয়েন্দা সংস্থার বেশ কয়েকজন এজেন্ট, একজন মেরিন ওয়ান পাইলট ও হোয়াইট হাউসের ক্যাফেটেরিয়া কর্মীও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

তবে হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, প্রেসিডেন্ট বা ভাইস প্রেসিডেন্টের কেউই করোনায় আক্রান্ত কর্মকর্তাদের কারণে ঝুঁকির মুখে পড়েননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!